বাংলাদেশ বিশেষ সংবাদ

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে এক কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎবিহীন

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণে উপকূলীয় অঞ্চলের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত। দেশের প্রায় এক কোটি গ্রাহক এখন বিদ্যুৎবিহীন অবস্থায় আছেন। সারারাতের ঝড়বৃষ্টির পর এখন মেরামতের কাজে নেমেছে বিতরণ সংস্থার লোকেরা। কিছু কিছু অঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হলেও সেটার পরিমাণ কম।  বড় বড় গাছ উপড়ে বিদ্যুতের তারের উপর পড়ে তার ছিঁড়ে গেছে। কোথাও কোথাও উপড়ে পড়েছে বা  ভেঙে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি।

পল্লি বিদ্যুৎ বোর্ডের (আরইবি) সদস্য (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অঞ্জন কান্তি দাশ বলেন, ‘আম্পানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির শিকার হলাম আমরা। আমাদের গ্রাহক বেশি। উপকূলের অধিকাংশ জেলা বিদ্যুৎবিহীন।  আমরা ঝড় কমার পর ভোর থেকেই মেরামতের কাজে নেমে গেছি। বরিশাল, ভোলা, ঝালকাঠিসহ বেশ কয়েকটি অঞ্চলে কিছু কিছু করে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হয়েছে। আরইবির গ্রাহকদের মধ্যে ঢাকার আশপাশ ছাড়া কমবেশি সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চাঁদপুর, চট্টগ্রাম,  কক্সবাজার, যশোর, খুলনা, বরিশাল বেল্টে ক্ষতির পরিমাণ সবচেয়ে বেশি।  বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙেছে প্রায় ২০০ এর মতো। অসংখ্য বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে বড় বড় গাছ পড়ে। আমাদের দুই কোটি ৮৫ লাখ গ্রাহকের মধ্যে প্রায় ৮০ থেকে ৯০ লাখ গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ আছে।’ দুপুরের মধ্যে আরও বেশ কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এদিকে উপকুলীয় এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সংস্থা ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি  ( ওজোপাডিকো)  এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিক উদ্দিন জানান, ‘এর আগে এই ধরনের ঝড় আসলে আমাদের কেউ দেখেনি। প্রায় সারারাতই ঝড় হয়েছে। ফিডারগুলো একটা পর্যায়ে এক এক করে সব বন্ধ হয়ে যায়। কয়েকটি গ্রিডও বন্ধ হয়ে গেছিল। কোথাও ১৩২ লাইন ট্রিপ করে,  কোথাও ওভার ভোল্টেজে ট্রান্সফরমার ট্রিপ করে। এতেও বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। আর আমাদের অসংখ্য খুটি ভেঙে গেছে ও বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে।’

তিনি জানান, ‘সবচেয়ে বেশি ক্ষতির শিকার হয়েছি আমরা। আমাদের প্রায় ১২ লাখ গ্রাহকই ক্ষতিগ্রস্ত।  সকাল থেকে আমাদের টিমগুলো বিভিন্ন অঞ্চলে কাজ শুরু করেছে। আস্তে আস্তে বিদ্যুৎ সরবরাহ ঠিক করা হচ্ছে। বরিশাল, যশোর, সাতক্ষীরা, বাগেরহাটে বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করেছি। কিন্তু সেখানে আবার  কিছু কিছু ফিডার চালু করা এখনও সম্ভব হয়নি।’ আজ বৃহস্পতিবার রাতের মধ্যে বেশিরভাগ এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়ে আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। তবে প্রত্যন্ত এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে বলে তিনি জানান।

Advertisements

এদিকে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ ( পিজিসিবি) এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম কিবরিয়া জানান, ‘উপকূলীয় এলাকাগুলোতে আমাদের সমস্যা হয়েছে। ভোলা থেকে শুরু করে সুন্দরবন পর্যন্ত পুরো এলাকাজুড়েই চলেছে ঝড়ের তাণ্ডব। ফলে ক্ষতিও হয়েছে অনেক। আমাদের গ্রিডে এখন বিদ্যুৎ আছে। কিন্তু বিতরণ লাইনের সমস্যার কারণে তারা বিদ্যুৎ নিতে পারছে না। আমাদের এখন একমাত্র সমস্যা কুষ্টিয়াতে। শহরসহ আশেপাশে বিদ্যুৎ নেই। আমরা ভেড়ামারা থেকে বিকল্প উপায়ে বিদ্যুৎ দেওয়ার চেষ্টা করছি। হাসপাতালগুলোতে জেনারেটর দিতে অনুরোধ করেছি।’

এর বাইরে পিডিবিরও বেশ কিছু লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তারাও সকাল থেকে কাজ শুরু করেছে। আজ রাতের মধ্যে সরবরাহ ঠিক হবে বলে তারা আশা করছে। এদিকের ঢাকায় বিদ্যুতের কোনও সমস্যা হয়নি বলে জানিয়েছে বিতরণ কোম্পানি দুইটি।

উৎসঃ বাংলা ট্রিবিউন

Drop your comments:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Pin It on Pinterest