টপ নিউজ লাইফস্টাইল

করোনাভাইরাস: বাংলাদেশে লকডাউন কী আসলে কাজ করেছে?

করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় বাংলাদেশে একমাসেরও বেশি সময় ধরে সাধারণ ছুটি এবং বহু এলাকায় লকডাউন চলছে। সারাদেশে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় এখন পর্যন্ত দেশের ৬০টি জেলাকে লকডাউন করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে কঠোর লকডাউনের সুফল যেমন রয়েছে তেমনি দেশব্যাপী এই অচলাবস্থার কারণে লক্ষ কোটি টাকার ক্ষতির মুখে পড়ছে দেশের অর্থনীতি।

বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে মাদারীপুরে। ১৯শে মার্চ শিবচর উপজেলা লকডাউন করা হয়।

আইইডিসিআর এর তথ্যে ৩০শে এপ্রিল পর্যন্ত পুরো মাদারীপুর জেলায় মোট আক্রান্ত ৩৮জন।

জেলার সিভিল সার্জন জানান, শিবচরে আক্রান্ত ১৯ জনের মধ্যে ১২জনই সুস্থ।

Advertisements

লকডাউন কী আসলে কাজ করেছে?

কার্যকর লকডাউন যে সংক্রমণ ঠেকাতে সহায়তা তার একটা দৃষ্টান্ত হতে পারে টোলারবাগ।

সারাদেশে সরকারি ছুটি ঘোষণার আগেই রাজধানীর টোলারবাগ এলাকা লকডাউন করা হয়। আইইডিসিআর এর সর্বশেষ তথ্যে দেখা যাচ্ছে সমগ্র ঢাকায় ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লে ১২ই এপ্রিলের পর টোলারবাগে কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হননি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কন্ট্রোল রুমের সহকারী পরিচালক ডা. আয়েশা আক্তার বলেন, শিবচর, টোলারবাগের মতো যেসব এলাকায় কার্যকরভাবে লকডাউন পালিত হয়েছে সেখানে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আছে।

“নির্দেশনায় কিন্তু আছে যে গণজমায়েত করা যাবে না, গণসমাবেশ করা যাবে না, মসজিদে না গিয়ে বাসায় নামাজ পড়ার। অনেক জায়গায় কিন্তু বাস্তবায়ন ভালভাবে হয়েছে যেমন টোলারবাগ, বাসাবো এবং মাদারীপুর।”

“এসব এলাকায় কিন্তু লকডাউনের ভাল ফল পাওয়া গেছে। মানুষ যদি সচেতন হয়ে কাজ করে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে তাহলে এটে (সংক্রমণ) নিয়ন্ত্রণের মধ্যে চলে আসবে।”

Advertisements

এদিকে দেখা গেছে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, কিশোরগঞ্জে সংক্রমণ বেশি হয়েছে সাধারণ ছুটি বা লকডাউনের মধ্যেই। যে কারণে সাধারণ ছুটি কতোটা কার্যকর সেটি নিয়েও কেউ কেউ প্রশ্ন তোলেন।

যেহেতু একমাসের বেশি সময় ধরে সারাদেশের গণপরিবহন, অফিস আদালত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ তাই ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রেখে অর্থনীতি সচল করাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে সামনে এসেছে।

Drop your comments:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Pin It on Pinterest